শেখ হাসিনা হত্যাচেষ্টায় ১১ জনের কারাদণ্ড


শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টার দায়ে ১১ জনকে ২০ বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে ৪০ হাজার টকো করে জরিমানা, অনাদায়ে এক বছর করে কারাদণ্ড পেয়েছেন তারা। রায়ে ১২ আসামির মধ্যে বাকি একজন খালাস পেয়েছে। ১৯৮৯ সালের ১০ আগস্ট ধানমণ্ডির ৩২ নম্বর বাড়িতে হামলা চালিয়ে শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হচ্ছেন- লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) খন্দকার আবদুর রশীদ, মো. মিজানুর রহমান, মো. শাজাহান বালু, গাজী ঈমাম হোসেন, জর্জ মিয়া, গোলাম সারোয়ার মামুন, মো. সোহেল ওরফে ফ্রিডম সোহেল, গোলাম সারোয়ার মামুন, সৈয়দ নাজমুল মাকসুদ মুরাদ, মো. হুমায়ুন কবির হুমায়ুন ও খন্দকার আমিরুল ইসলাম কাজল। অপর আসামি হুমাউন কবির ওরফে কবির খালাস পেয়েছেন।

দণ্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে গোলাম সারোয়ার মামুন, জর্জ মিয়া, মো. সোহেল ওরফে ফ্রিডম সোহেল ও সৈয়দ নাজমুল মাকসুদ মুরাদ গ্রেফতার হয়ে কারাগারে ছিলেন। তাদের রায় শোনাতে আদালতে হাজির করা হয়।

জামিনে থাকা চার আসামি গাজী ঈমাম হোসেন, খন্দকার আমিরুল ইসলাম কাজল, মো. মিজানুর রহমান ও মো. শাজাহান বালুও আদালতে হাজির ছিলেন। দণ্ডপ্রাপ্ত এ আটজনকে সাজা পরোয়ানা দিয়ে কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

অন্য তিনজন লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) খন্দকার আবদুর রশীদ, জাফর আহম্মদ মানিক ও মো. হুমায়ুন কবির হুমায়ুন পলাতক। খালাস পাওয়া হুমাউন কবির ওরফে কবির জামিনে ছিলেন।

রোববার (২৯ অক্টোবর) পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডে পুরনো ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের বিপরীতে স্থাপিত ঢাকার চতুর্থ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ মো. জাহিদুল কবিরের অস্থায়ী আদালত ফ্রিডম পার্টির গ্রেনেড/বোমা হামলা মামলার এ রায় দেন।

গত ১৫ অক্টোবর উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক (আর্গুমেন্ট) উপস্থাপন শেষে মামলাটির রায় ঘোষণার দিন ২৯ অক্টোবর ধার্য করা হয়।

Facebook Comments