মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে আসতে পারে ৩ লাখ রোহিঙ্গা


মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সেনাবাহিনীর নিপীড়ন, হত্যা, ধর্ষণ থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আসতে পারে ৩ লাখ রোহিঙ্গা। জাতিসংঘ সতর্ক করে বলেছে, পালিয়ে আসা এই শরণার্থীদের জন্য জরুরি ভিত্তিতে খাদ্যের প্রয়োজন।

বাংলাদেশের কক্সবাজার সীমান্তে জাতিসংঘের কর্মীদের তথ্য অনুযায়ী, গত দুই সপ্তাহে প্রায় এক লাখ ৪৬ হাজার রোহিঙ্গা শরণার্থী বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। যে হারে বাংলাদেশে রোহিঙ্গারা প্রবেশ করছে তাতে এই সংখ্যা ৩ লাখ ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

সেনাবাহিনীর অত্যাচার, নিপীড়ন থেকে বাঁচতে দলে দলে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে প্রবেশ করছে। তবে বাংলাদেশে রোহিঙ্গা প্রবেশের সঠিক সংখ্যা নিশ্চিত করাটা বেশ কঠিন হয়ে পড়েছে।

জাতিসংঘের কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির (ডব্লিউএফপি) বাংলাদেশের মুখপাত্র দীপায়ন ভট্টাচার্য বলেন, বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শরণার্থী প্রবেশের সংখ্যা ১ লাখ ২০ হাজার থেকে ৩ লাখ ছাড়িয়ে যেতে পারে।

তিনি রয়টার্সকে বলেন, ‘বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের অধিকাংশই পুষ্টিহীনতায় ভুগছে। এক মাস ধরে তারা স্বাভাবিক খাবারও খেতে পারছিল না। এমন পরিস্থিতি এসব শরণার্থীরা প্রচণ্ড ক্ষুধার্ত এবং মানসিকভাবেও বিপর্যস্ত।’

তিনি আরো বলেন, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের যে ঢল নেমেছে বাংলাদেশে, তাদের মধ্যে অনেকে অসুস্থ বা আহত। এদের মধ্যে কয়েক হাজার মানুষ বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি সংস্থার কাছ থেকে সাহায্য সহযোগিতা পেয়েছে।

তবে অনেকই আবার কোথাও আশ্রয় না পেয়ে এখনো খোলা আকাশের নিচে দিন কাটাচ্ছে। বিভিন্ন মানবিক সহায়তা প্রদানকারী সংস্থাগুলো তাদের জন্য বিশুদ্ধ পানি, পয়ঃনিষ্কাষণ এবং খাবারের যোগানের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

/ জাগো নিউজ

Facebook Comments