ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য স্বীকৃতি পেল বাংলাদেশের ইলিশ


বাংলাদেশের ইলিশ মাছ ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। এর ফলে জাতীয় মাছ বাংলাদেশের নিজস্ব পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি পেল। এর আগে জামদানি জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে।

জিআই পণ্য হিসেবে ইলিশ নিবন্ধনের সব প্রক্রিয়া শেষ বলে জানিয়েছে পেটেন্ট ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস অধিদপ্তর। এক সপ্তাহের মধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে মৎস্য অধিদপ্তরের হাতে ইলিশের জিআই নিবন্ধনের সনদ তুলে দেওয়া হতে পারে।

ওয়ার্ল্ড ফিশের পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী, বিশ্বের মোট ইলিশের ৬৫ শতাংশ উৎপাদিত হয় বাংলাদেশে। ভারতে ১৫ শতাংশ, মিয়ানমারে ১০ শতাংশ, আরব সাগর তীরবর্তী দেশগুলো এবং প্রশান্ত ও আটলান্টিক মহাসাগর তীরবর্তী দেশগুলোতে বাকি ইলিশ ধরা পড়ে।

বিশ্বে ইলিশ উৎপাদিত ১১টি দেশের মধ্যে ১০টিতেই ইলিশের উৎপাদন কমছে। একমাত্র বাংলাদেশেই ইলিশের উৎপাদন বাড়ছে।

জামদানির পর এবার বাংলাদেশের ইলিশ মাছ ভৌগোলিক নির্দেশক বা জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। এর ফলে ইলিশ বাংলাদেশের নিজস্ব পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি পেল।

ভৌগোলিক নির্দেশক  বা জিওগ্রাফিক্যাল ইনডিকেশন পণ্য হিসেবে ইলিশ নিবন্ধনের সব প্রক্রিয়া শেষ বলে জানিয়েছে পেটেন্ট ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস অধিদপ্তর। এক সপ্তাহের মধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে মৎস্য অধিদপ্তরের হাতে ইলিশের জিআই নিবন্ধনের সনদ তুলে দেওয়া হতে পারে।।

ওয়ার্ল্ড ফিশের পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী, বিশ্বের মোট ইলিশের ৬৫ শতাংশ উৎপাদিত হয় বাংলাদেশে। ভারতে ১৫ শতাংশ, মিয়ানমারে ১০ শতাংশ, আরব সাগর তীরবর্তী দেশগুলো এবং প্রশান্ত ও আটলান্টিক মহাসাগর তীরবর্তী দেশগুলোতে বাকি ইলিশ ধরা পড়ে।

ইলিশ আছে—বিশ্বের এমন ১১টি দেশের মধ্যে ১০টিতেই ইলিশের উৎপাদন কমছে। একমাত্র বাংলাদেশেই ইলিশের উৎপাদন বাড়ছে।

/ এনটিভি

Facebook Comments