জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ। (ফাইল ছবি)

‘ভারত সম্পর্কে কোনো কথা বলি নাই’


ভারত সফর শেষে গত ২৩ জুলাই দেশে ফেরেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ। সেদিন বিমানবন্দরে উপস্থিত নেতাকর্মীদের উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে তিনি বলেছিলেন, জাতীয় পার্টিকে ক্ষমতায় আনার ব্যাপারে আশ্বাস দিয়েছে ভারত। তারা জাতীয় পার্টিকে ক্ষমতায় দেখতে চায়।

তবে ঠিক ১১ দিন পর এসে সেই কথা অস্বীকার করলেন এরশাদ। তাঁর দাবি, ভারত সফর শেষে দেশে ফিরে এ সম্পর্কে একটি কথাও বলেননি তিনি।

আজ বৃহস্পতিবার বনানীতে দলের কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান।

তিনি বলেন, ‘ফিরে আসার পর ভারত সম্পর্কে আমি কোনো কথা বলি নাই। আমার মুখ দিয়ে কোনো বাক্য উচ্চারিত হয় নাই। আমাকে তারা সমর্থন করবে কি ইত্যাদি ইত্যাদি।’

সংবাদ সম্মেলনে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সরকারের চরম ব্যর্থতার কথা তুলে ধরেন এইচ এম এরশাদ। দেশের সামগ্রিক অবস্থা বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি প্রায় সব ক্ষেত্রে সরকারের ব্যর্থতার চিত্র তুলে ধরেন। কিন্তু সরকারে থেকে এসব বিষয়ে জাতীয় পার্টি দায় নিতে চায় না। ফলে প্রশ্ন ওঠে তাঁর পদত্যাগ বিষয়ে। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘যেহেতু উনি আমাকে এই পদটা দিয়েছেন, সম্মান দিয়েছেন। উনাকে প্রশ্ন না করে, উনার অনুমতি ছাড়া করলে উনাকে অসম্মানিত করা হবে। সেটা করতে চাই না আমি।’

এ ছাড়া গতকাল বুধবার রাতে বিকল্পধারার প্রেসিডেন্ট ডা. বদরুদ্দোজা চৌধুরীর বাসায় একটি বৈঠকে জি এম কাদেরের উপস্থিতি বিষয় সম্পর্কে জানতে চান সাংবাদিকরা। জবাবে এরশাদ বলেন, ‘সাবেক রাষ্ট্রপতি বদরুদ্দোজা চৌধুরী সাহেবকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ইফতারের দাওয়াত করেছিলেন। তার অর্থ যে উনি সরকারের বিরুদ্ধে নন। না হলে আর কেউকে তো আমন্ত্রণ করেননি শেখ হাসিনা। উনি টেবিলে আমার পাশে বসেছিলেন। এর মধ্য দিয়ে প্রতীয়মান হয় না যে উনি মিত্র বাহিনীতে আছেন।’

সংবাদ সম্মেলনে আসন্ন নির্বাচন প্রসঙ্গেও কথা বলেন জাতীয় পার্টির প্রধান। তিনি বলেন, সংবিধানের বাইরে কোনো নির্বাচন হোক, তা তিনি চান না।

Facebook Comments