ফাইল ছবি

জাতীয় ঈদগাহে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত


রাজধানী ঢাকায় ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে আজ শনিবার সকাল ৮টায় সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে জাতীয় ঈদগাহ ময়দানে। ঈদের এ জামাতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গে অংশ নেন।

জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের পেশ ইমাম মাওলানা হাফেজ মিজানুর রহমান এ জামাতের ইমামতি করেন।

নামাজ শেষে দেশের শান্তি ও উন্নয়ন, জনগণের কল্যাণ এবং মুসলিম উম্মাহর বৃহত্তর ঐক্য কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। এছাড়া মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলিমদের জন্যও দোয়া করা হয়।

এদিকে, জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমেও ঈদের প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জাতীয় ঈদগাহের প্রধান জামাতে রাষ্ট্রপতি ছাড়াও মন্ত্রিসভার সদস্যরা, সুপ্রিম কোর্ট ও হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতিরা, সংসদ সদস্যরা, সিনিয়র রাজনৈতিক নেতারা, সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এবং বিভিন্ন মুসলিম দেশের কূটনীতিকসহ সর্বস্তরের লাখো মানুষ উৎসব আমেজে সেখানে নামাজ আদায় করেন। নামাজ শেষে রাষ্ট্রপতি উপস্থিত সবার সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। তিনি ৭টা ৪৯ মিনিটে ঈদগাহে আসেন।

এ জামাত উপলক্ষে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে রমনা পার্ক সংলগ্ন মৎস্য ভবন মোড়, পল্টন মোড় হয়ে প্রেসক্লাব, গুলিস্তান থেকে ফজলুল হক (মুসলিম) হলের সামনে দিয়ে, দোয়েল চত্বর থেকে সুপ্রিম কোর্টের মাজার গেট দিয়ে জাতীয় ঈদগাহর দিকে সকাল সাড়ে ৬টা থেকে দল বেঁধে মুসল্লিরা আসতে শুরু করেন। তাদের র্যােবের নিরাপত্তা চৌকি পার হয়ে ঈদগাহে প্রবেশ করতে হয়।

রাষ্ট্রপতি, বিচারপতি, মন্ত্রিপরিষদ সদস্য, বিভিন্ন মুসলিম বিশ্বের কূটনীতিকদের এবং নারীদের জন্য আলাদা নামাজের ব্যবস্থা ছিল।

বড়দের পাশাপাশি শিশু-কিশোররাও শরিক হয় এ জামাতে।

এ সময় ‘আল্লাহুম্মা আমিন’ ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে ওঠে পুরো ঈদগাহ এলাকা। গুনাহ মাফের জন্য দুই হাত তুলে আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করেন মুসল্লিরা। নামাজের আগে বয়ানের সময় ইমাম বাংলাদেশসহ বিশ্বব্যাপী চলমান সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।

পরে ধনী-গরিবের ভেদাভেদ ভুলে সবাই এক কাতারে দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করেন। নামাজ শেষে নিজের পাপমোচন এবং পরিবার-পরিজন, দেশ ও মুসলিম উম্মাহর জন্য দোয়া চেয়ে আল্লাহর দরবারে মোনাজাত করেন। এর পাশাপাশি বিশেষ করে মিয়ানমারের নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের জন্যে দোয়া করা হয়।

এছাড়া পশু কোরবানি যেন হযরত ইব্রাহিম (আ.)-এর মহান আত্মত্যাগের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে নিজের ভেতরের পশুত্বকে পরিহার ও আল্লাহর অনুগ্রহ লাভ করা যায় সেই দোয়া করা হয়।

এদিকে, পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে দেশের বিভিন্ন সরকারি হাসপাতাল, কারাগার ও সরকারি আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হবে বলে জানা গেছে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) তত্ত্বাবধানে অনুষ্ঠিত ঈদের এ প্রধান জামাতে নারী ও বিদেশি কূটনীতিকদের নামাজ আদায়ে বিশেষ ব্যবস্থা ছাড়াও আগত মুসল্লিদের জন্য খাবার পানি ও মোবাইল টয়লেটেরও বিশেষ ব্যবস্থা ছিল।

অন্যদিকে, রাজধানীর দ্বিতীয় বৃহত্তম ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয় বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে সকাল সাড়ে ৭টায়। বায়তুল মোকাররম মসজিদে প্রতি ১ ঘণ্টা অন্তর একটি করে মোট ৫টি ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে ঈদুল আজহার নামাজ আদায়ের লক্ষ্যে মুসল্লিদের সুবিধার্থে জাতীয় ঈদগা এবং বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে পর্যাপ্ত পানি ও নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।

এছাড়াও জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের উদ্যোগে জাতীয় সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় সকাল সাড়ে ৭টায় অনুষ্ঠিত ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এতে মন্ত্রিপরিষদের সদস্য ও সংসদ সদস্যরা সহ সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারী, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং এলাকার সাধারণ মানুষও অংশ নেন।

Facebook Comments